প্রাইমারি টেট প্রার্থীদের বিরাট আন্দোলনের হুশিয়ারি, চাকরি দিতে হবে অবিলম্বে।




নিজস্ব প্রতিবেদন :-    শিক্ষক নিয়োগ প্রক্রিয়া নিয়ে রাজ্য সরকারের বিরুদ্ধে অভিযোগের সুর শোনা গেছে একাধিকবার। প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগ প্রক্রিয়া নিয়েও একই পরিস্থিতি। এই অবস্থায় মাথাচাড়া দিয়েছে টেট উত্তীর্ণ প্রার্থীদের 'বঞ্চনার' কাহিনি। যদিও ছ'বছর আগে থেকেই এই সমস্যার মুখে তাঁরা। আদালত পর্যন্ত এগোলেও আজ পর্যন্ত সুরাহা পাননি প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগের টেট উত্তীর্ণ প্রার্থীরা। তাঁরা পরীক্ষায় পাস করলেও হাতে পাননি টেট সার্টিফিকেট। ফলে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সরকারের প্রতি ক্ষোভ প্রকাশ করছেন তাঁরা। আন্দোলনের পথেই তাঁরা হাঁটবেন বলে জানিয়েছেন।




বর্তমান রাজ্য সরকার ক্ষমতায় এসে ২০১৪ সালে প্রকাশ করেছিল প্রাথমিক শিক্ষক নিয়োগের বিজ্ঞপ্তি। পরের বছর অনুষ্ঠিতও হয়েছিল পরীক্ষা। সূত্রের খবর, শিক্ষক নিয়োগের প্রাথমিক পরীক্ষায় উত্তীর্ণদের টেট সার্টিফিকেট দেওয়া হবে বলেই জানিয়েছিল শিক্ষা দফতর। সেই পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হয়েছিলেন প্রায় এক লক্ষ পরীক্ষার্থী। কিন্তু সবাই পাননি টেট সার্টিফিকেট। ফলে একলক্ষের মধ্যে ২৫,০০০ পরীক্ষার্থীকে শিক্ষক পদে নিয়োগ করা হয়েছিল। বাকিদের সার্টিফিকেট আজও দেওয়া হয়নি বলে অভিযোগ তুলেছেন টেট উত্তীর্ণরা। এই বিষয়ে প্রাথমিক শিক্ষা সংসদ ও বিকাশ ভবন থেকেও কোনও সদুত্তর পাননি তাঁরা। সেই কারণে বাধ্য হয়ে কলকাতা হাইকোর্টের শরণাপন্ন হয়েছিলেন তাঁরা।


গত বছরের এপ্রিল মাস নাগাদ কলকাতা হাইকোর্ট টেট উত্তীর্ণদের পক্ষে রায় দিলেও সরকারের তরফে কোনও উদ্যোগ নেওয়া হয়নি। অগত্যা এবার তাঁরা আন্দোলনের পথ নিচ্ছেন বলেই জানিয়েছেন। শিগগিরই রাস্তায় নামতে চলেছেন তাঁরা। স্বদেশ ঘোষ এবং শেখ নাসিম আহমেদ নামে দু'জন টেট উত্তীর্ণ পরীক্ষার্থী সাফ জানিয়েছেন, প্রতিটি টেট পাস করা প্রার্থীকে অবিলম্বে সার্টিফিকেট প্রদান করা হোক। অধিকার আদায় না হওয়া পর্যন্ত তাঁরা আন্দোলন চালিয়ে যাবেন। কলকাতা হাইকোর্টের রায় সত্ত্বেও কোনও সুরাহা পাননি তাঁরা। আন্দোলন কি তাঁদের পথ দেখাতে পারবে, সময় বলবে।

I***************************************************************************

 গত কয়েকদিন আগে রাজ্যের শিক্ষক নিয়োগের অন্যতম বোর্ড এসএসসি শিক্ষক নিয়োগের নতুন পদ্ধতি চালু করার বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেছিল, যদিও তার সচ্ছতার ইতিবাচক ও নেতিবাচক বহু মন্তব্য এসেছে।

   যার পরিপ্রেক্ষিতে শিক্ষামন্ত্রী আবারও মুখ খুললেন  ,
SSC(এসএসসি) তে দ্রুততার এবং স্বচ্ছতার সঙ্গে শিক্ষক নিয়োগের লক্ষ্যেই নতুন ব্যবস্থা নিয়ে আসা হয়েছে। ঠিক এমনটাই জানিয়েছে শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়। গতকাল পুরুলিয়ার সিধো-কানহো বীরসা বিশ্ববিদ্যালয়ে চতুর্থ সমাবর্তন অনুষ্ঠানে যোগ দিয়ে এমন মন্তব্য করেন শিক্ষামন্ত্রী ।
তিনি বলেন, যাঁদের শিক্ষাগত যোগ্যতা থাকবে, তাঁরা অবশ্যই চাকরির পরীক্ষায় ভালো করতে পারবেন। তিনি জানান, বিতর্ক সরিয়ে শিক্ষার মানোন্নয়নই রাজ্য সরকারের মূল লক্ষ্য বলে জানান শিক্ষামন্ত্রী।
সাংবাদিকদের প্রশ্ন উত্তর পর্বে শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায় জানান যে, এমন ব্যবস্থা করা যায়, যার মাধ্যমে নিয়োগ করা সম্ভব হবে। সেই সিস্টেম ‘ফুল প্রুফ’ হবে কি না ভবিষ্যৎই বলবে। নিয়োগ প্রক্রিয়া যাতে কোনওমতেই দীর্ঘায়িত না হয়, তা দেখতে হবে। বিভিন্ন শিক্ষক সংগঠন ও হাইকোর্টকে জিজ্ঞাসা করুন, যাঁরা প্রতিনিয়ত মামলা করেন, তাঁরা আমাদের কাছে এসে কথা বলে মেটান না কেন?

আপনারা জানেন নতুন শিক্ষক নিয়োগ নীতি ইতিমধ্যেই প্রকাশ করা হয়েছে। সেই নীতি নিয়ে বেশ কিছু শিক্ষক সংগঠন প্রশ্ন তুলতে  শুরু করেছে। যে প্রশ্নতি বেশি আসছে সেটি হল একাডেমিক স্কোর কেন তুলে দেওয়া হল ,সেই নিয়ে। এই প্রশ্ন যখন শিক্ষামন্ত্রীকে করা হয় তখন তিনি জানান যে, “যাঁর শিক্ষাগত যোগ্যতা থাকবে, তিনি অবশ্যই চাকরির পরীক্ষায় ভালো করতে পারবেন


*************************************************************

পশ্চিমবঙ্গে  বিরাট নিয়োগের সিদ্ধান্ত নিয়েছে পশিমবঙ্গের একটি বেসরকারি সংস্থা থেকে । জানা গিয়েছে এই সংস্থায় মাধ্যমে কয়েক হাজার কর্মী নিয়োগ করবে
পশিমবঙ্গের ১৯ জেলায় এই নিয়োগ করা হবার বলে বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে ।
এই পদগুলিতে আবেদন করতে অষ্টম পাস্ থেকে স্নাতক যে কোনো যোগ্যতা থাকলে আবেদন করা যাবে উক্ত পদ গুলিতে ।
Human Industrial(OPC) Pvt.Ltd. এই সংস্থার মাধ্যমে ৭২২৮ টি শূন্যপদ পূরণের বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ  করেছে জানানো হয়েছে ।
বিজ্ঞপ্তিতে তিন ধরনের পদের কথা উল্লেখ রয়েছে 1.District managing operator (80) 2. Block managing operator (680) 3. panchayat selling operator (6478)
যে যে জেলায় নিযোগ করা হবে তার নাম হল -১। পুরুলিয়া ২। মালদা ৩। জলপাইগুড়ি ৪। হুগলী ৫। দক্ষিণ দিনাজপুর ৬। কোচবিহার ৭। পূর্ব বর্ধমান ৮। বাঁকুড়া ৯। মুর্শিদাবাদ ১০। নাদিয়া গা। উত্তর ২৪ পরগনা ১২ । পশ্চিম মেদিনীপুর ১৩। দক্ষিণ ২৪ পরগনা ১৪ । উত্তর দিনাজপুর ১৫। পশ্চিম বর্ধমান ১৬। পুব মেদিনীপুর ১৭। ঝাড়গ্রাম ১৮। অলিপুদুয়ার ১৯। বীরভূম
বয়স হতে হবে ০১-০১-2020  অনুসারে ১৮- ৪০ বছরের মধ্যে ।
আবেদনের ফি হিসাবে ৮০ টাকা দিতে হবে ।
যে সমস্ত প্রার্থীরা আবেদন করবেন তাদের সরাসরি ইন্টারভিউ এ ডাকা হবে ।এসএমএস বা পোস্ট মাধ্যমে ডাকা হবে ।
বেতন দেওয়া হবে 7820 - 42500 টাকা পর্যন্ত ।
আবেদন চলবে 03-03-2020 থেকে 04-04-2020  পর্যন্ত ।
২-৩ মাসের মধ্যে ইন্টারভিউ এ ডাকা হবে বলে জানানো হয়েছে ।
এছাড়া আরো বিস্তারিত জানতে ও আবেদন করতে ভিসিট করুন www.hiplopc.in
***************************************************

নিজস্ব প্রতিবেদন :-   সামনে পৌরসভা ভোট এবং তার পরে রয়েছে বিধান সভা ভোট , এই দুই ভোট কে কেন্দ্র করে এই শূন্যপদ পূরণ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করল পশ্চিমবঙ্গ সরকার।

অনেক শূনপদেে নেওয়া বলে বলে বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেছে।।  নীচে পড়ুন                   

পশ্চিমবঙ্গে অষ্টম পাশে প্রচুর গ্রুপ ডি পদে নিয়োগের বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করেছে পশ্চিমবঙ্গের উঃ ২৪ পরগনা জেলা থেকে । বিজ্ঞপ্তি জানানো হয়েছে বেশ কিছু সংখ্যক গ্রুপ ডি পদে নিয়োগ করা হবে উঃ ২৪ পরগনা জেলার টিটাগর মিউনিসিপালিটিতে ।  পশ্চিমবঙ্গের যে কোনো জায়গা থেকে আবেদন করা যাবে বলে বিজ্ঞপ্তি তে জানানো হয়েছে ।

 পদের নাম হল মজদুর৷ একাধিক শূনপদ রয়েছে           আবেদনের যোগ্যতা - আবেদনের ক্ষেত্রে যোগ্যতা থাকতে হবে অষ্টম শ্রেণি পাস তাহলে উক্ত পদে আবেদন করতে পারবে ।


বয়স হতে হবে ১৮-৪০ বছরের মধ্যে এবং যারা বিভিন্ন সংরক্ষণ ক্যাটাগরিতে পরে তাদের জন্য সরকারি ভাবে যে ছাড় থাকে সেভাবেই থাকবে।।

পিডবলুডি ,  এসসি ও এসটিদের ৫ বছরের ছাড় থাকবে  এবং ওবিসিদের ৩ বছরের ছাড় থাকবে।


আবেদন করতে পারবেন সম্পূর্ণ অফলাইনের মাধ্যমে । কোনো আবেদন ফি জমা দিতে লাগবেনা৷

আবেদন পত্রটি জমা করতে হবে টিটাগর মিউনিসিপালিটি চেয়ারমেন এর অফিসে , উঃ ২৪ পরগনা,

 আরো বিস্তারিত জানতে ক্লিক করুন www.titagarhmunuciality.gov.in

আবেদনের শেষ তারিখ ১৭ মার্চ পর্যন্ত।।

 প্রার্থী যাচাই হবে প্রথমে পরীক্ষা ৮০ নম্বরের এবং তারপর ইন্টারভিউ দিতে হবে ২০ নম্বরের । এর পর ফাইনাল মেরিট লিস্ট প্রকাশিত হবে।।

একটি মন্তব্য পোস্ট করুন

0 মন্তব্য